একাডেমিক স্বাধীনতা লঙ্ঘন করে শিক্ষাঙ্গনে নৈরাজ্য সৃষ্টির অভিযোগে ৩০ নাগরিকের উদ্বেগ

Mar 1, 2023 - 12:45
Mar 1, 2023 - 14:56
 0  10
একাডেমিক স্বাধীনতা লঙ্ঘন করে শিক্ষাঙ্গনে নৈরাজ্য সৃষ্টির অভিযোগে ৩০ নাগরিকের উদ্বেগ
একাডেমিক স্বাধীনতা লঙ্ঘন করে শিক্ষাঙ্গনে নৈরাজ্য সৃষ্টির অভিযোগে ৩০ নাগরিকের উদ্বেগ

একাডেমিক স্বাধীনতা লঙ্ঘন করে শিক্ষাঙ্গনে নৈরাজ্য  সৃষ্টির অভিযোগের ব্যাপারে ৩০ নাগরিকের উদ্বেগ জানিয়েছে। তাদের বিবৃতিটি হুবহু তুলে দেওয়া হলো:

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বাংলাদেশের উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে একাডেমিক স্বাধীনতা এবং নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগসমূহ অন্যতম প্রধান উদ্বেগের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এরই ধারাবাহিকতায় বেশ কিছুদিন ধরে ক্ষমতাসীন‌ দলের ছাত্রসংগঠনের (ছাত্রলীগ) হাতে সাধারণ শিক্ষার্থী ও‌ ভিন্নমতের ছাত্রছাত্রীদের উপর নির্যাতন সংক্রান্ত অভিযোগসমূহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। সংগঠনটির নতুন কেন্দ্রীয় কমিটি গঠিত হওয়ার পর থেকে চলতি বছরের শুধু জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারী মাসে দেশের প্রায় বিভিন্ন গণমাধ্যমে ৩০টিরও বেশি চাঁদাবাজি, ছাত্র নির্যাতন, আবাসিক হলে নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি তৈরিসহ বিভিন্ন অপরাধের অভিযোগ বিভিন্ন গণমাধ্যমে এসেছে যেখানে বিভন্ন নেতা কর্মীর নাম উল্লেখ রয়েছে।

একাডেমিক স্বাধীনতা লংঘন করে শারীরিক নির্যাতনের মতো বিভিন্ন গণমাধ্যম কর্তৃক এসব দুর্বৃত্তপনার অভিযোগ এর ব্যাপারে আমরা দেশের ৩০ জন নাগরিক উদ্বেগ প্রকাশ করছি এবং সুষ্ঠু বিচার বিভাগীয় তদন্তের মাধ্যমে দায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

                                            এ প্রসঙ্গে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত উল্লেখযোগ্য কিছু অভিযোগ হলো: ১) মধ্য- ফেব্রুয়ারীতে কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষের এক ছাত্রীকে 'হলে না জানিয়ে উঠার কারণে' বিবস্ত্র করে রাতভর নির্যাতন (১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, দ্য ডেইলি স্টার)

২) চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের ৪ ছাত্রকে 'শিবির সন্দেহে' সন্ধ্যা থেকে সকাল পর্যন্ত ব্যাপক মারধর করে আইসিইউ-তে পাঠানো (১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, দ্য ডেইলি স্টার)

৩) ৬ ফেব্রুয়ারী বুয়েটের এক দম্পতির কাছ থেকে ১৫ হাজার টাকা ছিনতাই (২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, দ্য ডেইলি স্টার)

৪) জানুয়ারির ২৩ তারিখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজয় একাত্তর হলে ২ ছাত্রকে রাতভর নির্যাতন (২৪ জানুয়ারি ২০২৩, আজকের পত্রিকা) ।

৫) জানুয়ারির ১৯ তারিখে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শাহ মাখদুম হলের 'কৃষ্ণ রায়' নামক এক আবাসিক ছাত্রকে বেধম পেটানো (২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, দ্য ডেইলি স্টার) । 

৬) ফেব্রুয়ারীর ১১ তারিখে রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের এক নেতা সাধারণ এক ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবি (২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, দ্য ডেইলি স্টার) । 

৭) জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে ঢাবির অমর একুশে হলের ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে একদল ছাত্রলীগ কর্মীর 'চাদা না দেয়ায়' রাজধানীর  বঙ্গবাজারের এক ব্যবসায়ীর দোকান ভেঙ্গে দেয়া (১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, প্রথম আলো)।

  ৮) ১৭ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকায় বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের পঞ্চম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কর্মসূচিতে ছাত্রলীগের হামলায়  পরিষদের অন্তত ২০ নেতা-কর্মী আহত (১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, দ্য ডেইলি স্টার)।    

  ৯) ২১ ফেব্রুয়ারি অশোভন আচরণের প্রতিবাদ করায় ইডেন মহিলা কলেজের এক ছাত্রীকে স্টাম্প দিয়ে প্রহার, চুল ছিঁড়ে ফেলা এবং বঁটি নিয়ে‌ ধাওয়া  করার অভিযোগ উঠেছে কলেজ ছাত্রলীগের একজন সহসভাপতির বিরুদ্ধে (২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, প্রথম আলো)। 

১০) ছাত্রলীগের কর্মসূচিতে অনুপস্থিত থাকায় গত ২৪ ফেব্রুয়ারি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর হলের এক শিক্ষার্থীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে সংগঠনের ৯ কর্মীর বিরুদ্ধে (দেশ রুপান্তর, ২৬ ফেব্রুয়ারি) । 

এছাড়াও আরো ডজনের অধিক চাঁদাবাজি, হামলা, অভ্যন্তরীণ সংঘাতের অভিযোগ গণমাধ্যমে উঠে এসেছে। একটি স্বাধীন ও গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের নাগরিক হিসাবে আমরা এসব ঘটনায় অত্যন্ত ব্যথিত, শংকিত ও ক্ষুব্ধ। এই শংকা ক্রমশ বাড়ে যখন বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষের অসম্ভব নির্লিপ্ততার অভিযোগও গণমাধ্যম গুলোতে প্রচারিত হয়। তাই আমরা সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষের কাছে নির্লিপ্ততা ভেঙ্গে  তদন্ত সাপেক্ষে অপরাধীদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনী ও প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণের আহবান জানাচ্ছি ।                                                  

 বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেন (পদক্রম অনুসারে নয়): রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক দিলারা চৌধুরী,অর্থনীতিবিদ অ‌‌ধ্যাপক মাহবুব উল্যাহ, মানবাধিকার কর্মী নূর খান লিটন, সাবেক কূটনীতিক সাকিব আলী,  রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক আবদুল লতিফ মাসুম, অধ্যাপক এ বি এম ওবায়দুল ইসলাম, পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; অধ্যাপক সুকোমল বড়ুয়া,  অধ্যাপক মোঃ লুৎফর রহমান, পরিসংখ্যান বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; অধ্যাপক মোর্শেদ হাসান খান; অধ্যাপক মোহাম্মদ কামরুল আহসান, দর্শন বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়;  অধ্যাপক মোহাম্মদ ছিদ্দিকুর রহমান খান, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; অধ্যাপক সালেহ হাসান নকীব, পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়; প্রকৌশলী ম. ইনামুল হক, অধ্যাপক কামরুন্নেসা খন্দকার, প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়; অধ্যাপক শামীমা সুলতানা, বাংলা বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়;  সুলতান মোহাম্মদ জাকারিয়া, বাংলাদেশ ও পাকিস্তান কান্ট্রি স্পেশালিস্ট, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল ইউএসএ; সায়েন্টিফিক বাংলাদেশের এডিটর ড. মুনির উদ্দিন আহমেদ,  টেকসই উন্নয়ন বিষয়ক লেখক প্রকৌশলী ফয়েজ আহমদ তৈয়্যব; সাংবাদিক ও কলামিস্ট আবুল কালাম মানিক, লেখক ও গবেষক জিয়া হাসান, মোঃ সাইমুম রেজা তালুকদার, আইনজীবি ও সদস্য, বাংলাদেশ ইন্টারনেট ফ্রিডম ইনিশিয়াটিভ ওয়ার্কিং গ্রুপ; নাগরিক বিকাশ ও কল্যাণ-নাবিক'র আহ্বায়ক ব্যারিস্টার শিহাব উদ্দিন খান; জলবায়ু গবেষক ও আবহাওয়াবিদ মোস্তফা কামাল পলাশ; আইনজীবী অধিকার পরিষদের সমন্বয়ক ব্যারিস্টার মো. জীশান মহসীন, নাগরিক পরিষদের আহ্বায়ক মোহাম্মদ শামসুদ্দিন, সিভিল রাইটস ইন্টারন্যাশনাল, বাংলাদেশ'র (সিআরআই,বি) এক্সিকিউটিভ প্রেসিডেন্ট আহসান হাবীব; পেশাজীবী অধিকার পরিষদের সদস্য সচিব নিজাম উদ্দীন, লেখক ও গবেষক জাকারিয়া পলাশ, মানবাধিকার কর্মী ইজাজুল ইসলাম এবং লেখক ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক সোহেল রানা।

What's Your Reaction?

like

dislike

love

funny

angry

sad

wow